অলিভ অয়েলের উপকারিতা

অলিভ অয়েলের উপকারিতা

শীত, গ্রীষ্ম কিংবা বর্ষা ঋতুর পরিবর্তনে মানব জীবনের নানাবিধ পরিবর্তন আসলেও খাদ্যাভ্যাসের একটা বিষয় অপরিবর্তনীয়। বাঙ্গালী কিংবা মোগলাই শাহী যা কিছুই আমরা খাই না কেন, তাতে তৈলের ব্যবহার অপরিহার্য।

কিন্তু কথা হচ্ছে আপনার তৈরিকৃত এই সকল সুস্বাধু খাবার আরো স্বাস্থ্যকর করতে স্বাস্থ্যকর তেলের কথা কি কখনো ভেবেছেন?কোন তেল ব্যবহার করবেন ভাবছেন? –

আচ্ছা, অলিভ অয়েলটা কেন ব্যবহার করছেন না!  দামটা সামান্য বেশি হলেও পরিমাণে কিন্তু অল্পই লাগে।

এতে করে স্বাস্থ্য যেমন ভালো থাকল তেমনি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর হাদীসও মানা হলো।

অলিভ অয়েলের উপকারিতা সম্পর্কে তিনি তো বলেছেন, তোমরা যাইতুন তেল খাও এবং শরীরে মাখো।

অনেকেই জিজ্ঞেস করেন অলিভ অয়েল খাওয়া যায় কিনা?

জানিয়ে রাখছি, জ্বি এটি খাওয়া যায়। অলিভ অয়েল কেবল সাধারণ কোন খাবারই নয়; বরং এটি রাসূলুল্লাহ সাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ব্যবহৃত অন্যতম পথ্য সমূহের মধ্যে অন্যতম।

কোন অলিভ অয়েলটি খাবো?

অলিভ অয়েলের মধ্যে সর্বোৎকৃষ্ট হচ্ছে, কোল্ড প্রেসড এক্সটা ভার্জিন অলিভ অয়েল।

তবে বাজারের সকল প্রকার অলিভ অয়েল খাওয়া স্বাস্থ্যকর নয়। বিশেষ করে পোমেক অলিভ অয়েল।

বিশ্ব অলিভ কাউন্সিল পোমেক অলিভকে এখনো প্রকৃত অলিভ অয়েল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। কেননা, এর উৎপাদনে সরাসরি ক্যামিকেল ব্যবহার করা হয়। 

অলিভ অয়েলের উপকারিতা

জয়তুন তৈল বা Olive Oil এ অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান থাকে, যেগুলো (আল্লাহর অনুগ্রহে) আমাদের শরীরকে সুস্থ এবং সুন্দর রাখে।

১। খাবারে জয়তুন তেল ব্যাবহারের ফলে শরীরের ব্যাড ক্লোষ্টোরেল এবং গুড ক্লোষ্টোরেল নিয়ন্ত্রণ হয় ।

২। জয়তুন তেলের আরেকটা গুণাবলি হল এটা পাকস্থলীর জন্য খুব ভালো।

৩। অলিভ অয়েল শরীরের এসিড কমায় যকৃৎ (Liver) পরিষ্কার করে, যেটা প্রতিটি মানুষের ২/৩ দিনে একবার করে দরকার হয়।

৪। অলিভ অয়েলে উচ্চ মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। যার ফলে, আপনার হজমশক্তি নিয়ন্ত্রণ করে এবং অন্ত্রের নিয়মিত কার্যকারিতা নিশ্চিত করে।

আপনি যদি প্রতিদিন এক টেবিল চামচ হারে জায়তুন তৈল/ অলিভ অয়েল গ্রহণ করেন তবে আপনার হজম শক্তিবৃদ্ধি পাবে।  কোষ্ঠ কাঠিন্য দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৫। ওজন কমাতে সাহায্য করে। অলিভ অয়েল/ জায়তুন তেল গ্রহণ আপনার ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করে। আপনি যদি প্রতিদিন জলপাই তেলের সালাদ খান এবং জায়তুন তেল দিয়ে খাবার তৈরি করেন তবে এটি আপনার শরীরকে ফিট রাখতে সহায়তা করবে।

৬। হাঁড় মজবুত করে। জায়তুন ফলে উচ্চ মাত্রায় ক্যালসিয়াম থাকে। ক্যালসিয়াম হাড়ের বৃদ্ধি এবং মজবুত করতে সহায়তা করে। জায়তুন তেল, যা একটি উদ্ভিজ্জ তেল, হাড়কে শক্তিশালী করে এবং সুরক্ষা দেয়। জায়তুন তেল খনিজ সমৃদ্ধ এবং এর প্রভাব হাড়কে শক্তিশালী করতে ভূমিকা রাখে।

৭। ডায়াবেটিকসের ইনসুলিন হিসাবে কাজ করে। জলপাই তেল রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়। এটি ডায়াবেটিস রোগীদের ইনসুলিন হিসাবে কাজ করে এবং সমস্যাগুলিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।

৮। সাধারণত সন্তান হওয়ার পর মহিলাদের পেটে সাদা রঙের স্থায়ী দাগ পড়ে যায় । গর্ভধারণ করার পর থেকেই পেটে জয়তুন তেল (Olive Oil) মাখলে কোন জন্মদাগ পড়ে না। এটা একটা পরীক্ষিত ব্যাপার।

৯। জয়তুন তেল গায়ে মাখলে বয়স বাড়ার সাথে ত্বক কুঁচকানো প্রতিরোধ হয় ।

১০। গবেষকরা ২.৫ কোটি (25 million) লোকজনের উপর গবেষণা করে দেখিয়েছেন, প্রতিদিন ২ চামচ কুমারী জয়তুন তেল (Virgin Olive Oil) ১ সপ্তাহ ধরে খেলে ক্ষতিকর এলডিএল (LDL) কোলেস্টেরল কমায় এবং উপকারী এইচডিএল (HDL) কোলেস্টেরল বাড়ায়।স্প্যানিশ (Spanish) গবেষকরা দেখিয়েছেন, খাবারে জয়তুন তেল ব্যবহার করলে ক্লোন ক্যান্সার (Colon cancer ) প্রতিরোধ হয়।

১১। আরও কিছু গবেষক দেখিয়েছ, এটা ব্যাথা নাশক (Pain Killer) হিসাবে কাজ করে।

১২। গোসলের পানিতে ১/৪ চামচ ব্যবহার করে গোসল করলে শরীরে শিথিলতা পাওয়া যায়।

১৩। রূপ বর্ধনের জন্য এটা অনেকটা কার্যকর।

অলিভ অয়েলের উপকারীতা বলে শেষ করা যাবে না। তাই এর উপকারীতে পেতে আজ থেকে ব্যবহার করে দেখুন তুরস্কের বিখ্যাত মন্তেইদা কোম্পানির এক্সটা ভার্জিন অলিভ অয়েল।

আমাদের কাছে আপনি পাবেন শতভাগ কোল্ড প্রেস এক্সটা ভার্জিন অলিভ অয়েল, যা আমদানি করা হয়েছে তুরস্ক থেকে।

সকল মৌসুমে আপনার সুস্বাধু খাবারকে স্বাস্থ্যকর করতে অলিভ অয়েল ব্যবহার করুন।

আপনার শরীরকে ভিতর থেকে সুরক্ষা দিতে আপনার খাদ্য তালিকায় যুক্ত করুন আজই।

Related posts